ইউটিউব ভিডিও এসিও

হ্যালো বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই আশা করি ভাল আছেন। আজকেও চলে আসলাম নতুন আরো একটা টপিক নিয়ে সেটা হল। কীভাবে আপনি আপনার ইউটিউব ভিডিও এসিও করে বেশি ভিউ আনতে পারেন সে ব্যাপারে।

তো চলুন শুরু করা যাক। ইউটিউব কে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার মত কিছু নেই এই যুগে বাচ্ছা থেকে শুরু করে বৃদ্ধ সবাই মোটামুটি ইউটিউব চিনে।

সবাই এটা ব্যবহার করে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভিডিও শেয়ারিং প্লাটফর্ম এটা।গুগুল এর জনপ্রিয় সার্ভিস গুলোর মাঝে ইউটিউব অন্যতম।

ইউটিউবে বিভিন্ন ধরনের ভিডিও পাওয়া যায় বিভিন্ন ধরনের নিউজ, বিনোদন শিক্ষা মূলক ভিডিও থেকে শুরু করে যাবতীয় সব কিছুর ভিডিও ই ইউটিউবে রয়েছে।

আর এখন কার ছেলেমেয়েরা বিনোদন উপভোগ করার পাশাপাশি ইউটিউব থেকে ইনকাম করার ও পথ বের করছে। কিন্তু প্রপার গাইডলাইন না পাওয়ার কারনে কেউই সফল হতে পারছে না যার কারনে ঝড়ে পড়তেছে।

কিংবা কেউ কেউ বলে যে ইউটিউব এ ভিউ পাওয়া যায় না সহ অনেক কিছু। ঝড়ে পড়ার কারন হল তার যে প্রত্যাশা ছিল ইউটিউব নিয়ে সেই অনুযায়ী সফলতা অর্জন করতে না পারা।

এ একমাত্র কারন হল ইউটিউব ভিডিও এসিও না জানা। এসিও কী জিনিস। অামরা অনেকেই আছি যারা এসিও কী জানি আবার অনেক ই জানিনা এটা কী।

ইউটিউব ভিডিও এসিও বিস্তারিতঃ

 

তো যারা জানেন না তাদের জন্য সোজা ভাষায় বলি এসিও হল সেই মাধ্যম যার দ্বারা আপনি আপনার ইউটিউব ভিডিওতে ভিউ বাড়াবেন।

এসিও এর পূর্ন রুপ হল সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন। এটা দুই ধরনের হয়ে থাকে
১/ অনপেজ অপটিমাইজেশন
২/ অফপেজ অপটিমাইজেশন
অনপেজ আর অফপেজ এগ্লা আবার কী জিনিস চলুন জেনে নেই কী এগুলো

অনপেজ এসিও :

অনপেজএসিও অপটিমাইজেশন হল আমরা ইউটিউব এর ভিতরে যেসব কাজ করি সেগুলো যেমন:

১/ চ্যানেল এর নাম :

চ্যানেল এর নাম হল একটা ব্যান্ড যে নামে মানুষ আপনার চ্যানেল কে খুজে পাবে তাই সব সময় চেষ্টা করবেন সুন্দর সিম্পল সহজ টাইপের মানে মনে রাখা জায় এমন নাম নির্বাচন করতে।

২/ কি ওয়ার্ড :

কি ওয়ার্ড হল ইউটিউব ভিডিও এসিও করার প্রধান অস্ত্র। এটাকে যদি ভাল ভাবে ব্যবহার করতে পারেন তবে আপনি ভাল সফলতার মুখ দেখতে পারবেন এখানে আপনি আপনার চ্যানেল রিলেটেড যত কি ওয়ার্ড আছে মানে মানুষ যেগুলা লিখে ইউটিউবে সার্চ করতে পারে সেগুলো দিবেন।

৩/ ভাল চ্যানেল আর্ট/ কভার দেওয়া:

গ্রাফিক্স আমাদের কার না ভাল লাগে। যত সুন্দর গ্রাফিক্স আপনি আপনার চ্যানেল আর্টে ব্যবহার করবেন পাবলিক তত আকৃষ্ট হবে।

৪/ লগো:

ইউটিউব ভিডিও এসিও এর আরেকটা জিনিস হল লগো লগো হল আপনার ব্রান্ড আর এটা দেখলেই যেন মানুষের আপনার চ্যানেল এর কথা মনে পড়ে তাই ভাক কোয়ালিটির লগো ব্যবহার করুন।

৫/ ভিডিও কোয়ালিটি:

একটা সময় ছিল যখন ভিডিও কেয়ালিটি খারাপ হলেও সমস্যা ছিল না কিন্তু বর্তমানে সবাই ভালো কোয়ালিটির কন্টেন্ট খুজে তাই আপনাকেও সেটা প্রভাইড করতে হবে কারন এখন আপনার সমানে কম্পটিটর অনেক বেশি।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করবেন মাসে লাখ টাকা? ২০২০

 

৬/ ভাল থান্বনেল :

এটা ইউটিউব ভিডিও এসিও এর আরেকটা প্রধান জিনিস! থাম্বনেল বলতে ভিডিও এর উপরে যে ছবি টা সেটা করা থাকে সেটা! আপনার ভিডিও এর টপিক এ একটা হেডলাইন আর এক্টাটিব ছবি ব্যবহার করুন! ক্লিক না করার হলেও এটা দেখে মানুষ ক্লিক করে এমন ভাবে এটি তৈরি করুন।

৭/ টাইটেল :

এটা আরেকটা বিষয় ইউটিউব ভিডিও এসিও এর।! আপনি যে কি ওয়ার্ড এর উপর ভিডিও দিবেন সেটা যেন আপনার টাইটেল এ থাকে সে বিষয় টা লক্ষ রাখতে হবে।! এতে আপনার ভিডিও সার্চ রেজাল্ট বেশি দেখাবে।

৮/ ডেসস্কিপশন:

টাইটেল এর পর ইউটিউব ভিডিও এসিও এর মেইন হল ডেসস্কিপশন !এখানে আপনি আপনার ভিডিও এর বিস্তারিত লিখবেন আর !আপনার টার্গেট করা কি ওয়ার্ড এখানে ৪/৫ বার দিবেন এতে করে আপনার ভিডিও সার্চ রেজাল্টে আগে থাকবে।

সেরা ১০ টি ইউটিউব ভিডিও ডাউনলোডার ২০২০

 

এই বিষয় গুলো যদি আপনি ভাল ভাবে পালন করেন তাহলে আপনার অনপেজ ইউটিউব ভিডিও এসিও হয়েগেল এখন আসি অফপেজে।

অফপেজ এসিও :

অফপেজ হল যেটা ইউটিউব এর বাহিরে করা হয় সেটা মেইন কাজ !অনপেজে আপনি যদি অনপেজ ঠিক করে করে থাকেন তাহলে অফ পেজে আর বেশি কিছু করা লাগবে না! তাও দুইটা জিনিস আপনাদের জন্য টিপস দিলাম

১/ ভিডিও শেয়ার করা:

ইউটিউব ভিডিও এসিও করা হলে এখন যদি আপনি বিভিন্ন সোসাল মিডিয়ায় শেয়ার করেন আপনার ভিউ এখান থেকেও অনেক বাড়বে।
২/ ভিডিও এমবেইড:

আপনি আপনার ভিডিও এমবেইড করে বিভিন্ন ধরনের সাইটে শেয়ার করতে পারেন এতে করে আপনার অনেক ভিজিটর আসবে।

কেমন লাগল আজকের আর্টকেল টি জানাতে ভুলবেন না। ভাল লাগলে শেয়ার করুন নিজের বন্ধুদের সাথে।

By BDTrick

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *