মোবাইল দিয়ে ইনকাম

ব্লগিং করে : ব্লগিং মানেই হলো আপনার নিজের অভিজ্ঞতা অন্যের মাধ্যমে শেয়ার করা। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে আপনি চাইলে এখন মোবাইল দিয়ে ও ব্লগিং করতে পারবেন । আপনাকে ব্লগিং করতে হলে মৌলিক যে জিনিসগুলো প্রয়োজন তা হলো : ডোমেইন, হোস্টিং ওয়েবসাইট তৈরি করা, এসইও করা , কন্টন্টে লেখা। বর্তমানে আমরা জানি যে, ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে খুব সহজেই আপনি আপনার নিজের ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারবেন। আপনি চাইলে ইউটিউব , গুগল থেকে কিছু টিউটোরিয়াল দেখে মোবাইল দিয়েই আপনি আপনার ওয়েবসাইট তৈরি কযে ব্লগিং শুরু করতে পারেন । এরপর আপনার ব্লগ সাইটে ইনকাম করার জন্য বিজিটর প্রয়োজন , আপনি এসইও এর টুকটাক কাজ করে এবং বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে মার্কেটিং করে খুব সহজেই বিজিটর আনতে পারবেন। ভালো মতো কাজ করলে আপনি খব সহজেই এডসেন্স পেয়ে যাবেন । এবং সেই এডসেন্স থেকে ইনকাম করে চাইলে ল্যাপটপ নিয়ে নিতে পারবেন।

কন্টেন্ট রাইটিং :
বর্তমান প্রেক্ষাপঠে কন্টেন্ট রাইটিং এর চাহিদা অনেক। আপনি যদি ইংরেজিতে দক্ষ হন তাহলে ইংরেজি, যদি ইংরেজিতে দক্ষ না হন তাহলে বাংলা কন্টেন্ট রাইটিং করে ইনকাম করতে পারবেন ।

মোবাইল দিয়ে ইনকাম অনলাইন সার্ভে কি? Online Servey করে কিভাবে আয় করবেন?

ডিজিটাল মার্কেটিং :
মোবাইল দিয়ে বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং করা যায়। মাথা চমকে উঠছে ! হা সত্যিই এখন মোবাইল দিয়ে ও ডিজিটাল মার্কেটিং এর 60% কাজ করতে পারবেন। ফেসবুক এডস চ্যাম্পিয়ান, পেইজ মেনেজমেন্ট,ব্যাসিক এসইও থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের কাজ করোতে পারবেন।

এফিলিয়েট মার্কেটিং:
মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকামের অন্যতম একটি উপায় হলো এফিলিয়েট করা। আপনার যদি ভালো রিচ এবং ভালো একটা টার্গেটেড ফরোয়ার থাকে , তাহলে আপনি খুব সহজেই যেকোনো ই-কর্মাস কোম্পানী এর পোডাক্ট রিভিউ করে আপনার পোস্টে এফিলিয়েট লিংক এড করে আপনি আয় করতে পারবেন। সোশ্যাল মিডিয়া দিয়ে এফিলিয়েট করতে হলে আপনার প্রচুর পরিমাণে টার্গেটেড পিপলস এবং ফলোয়ার্স প্রয়োজন । আপনি ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, টুইটার যেই সোশ্যাল মিডিয়াতেই টার্গেটেড ফলোয়ার্স, পোস্ট রিচ হয় আপনি সেখান থেকে বিভিন্ন ভাবে আয় করতে পারবেন।

কিভাবে ইউটিউব চ্যানেল থেকে আয় করবেন মাসে লাখ টাকা? ২০২০

 

সার্ভের কাজ :
বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট সহ বিভিন্ন দেশ বর্তমানে পেইড সার্ভে করিয়ে থাকে। তারা তদের বিভিন্ন ধরনের সার্ভে করার জন্য বিভিন্ন কোম্পানীকে চুক্তি ভিক্তিক সার্ভে দিয়ে থাকে। এবং সেই কোম্পানী গুলো থেকে আপনি বাংলাদেশে বসে মোবাইলে দিয়ে সার্ভে করতে পারবেন। আপনাকে সার্ভে করার জন্য যা যা লাগবে: – রেসিডিন্সিয়াল আইপি, মোবাইল ফোন,ইন্টারনেট কানেকশন লাগবে।

ইনকাম অ্যাপ :

বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ট্রাস্টেড অনলাইন ইনকাম এপস রয়েছে! যেগুলো দিয়ে আপনি চাইলে 50-200 টাকা পর্যন্ত ইনকাম করতে পারবেন! যেমন: Clipsclaps etc এপস সহ বিভিন্ন ধরনের এপস রয়েসে! সেগুলো থেকে আপনি চাইলে মোবাইল রির্সাজ , বিকাশ পেমেন্ট নিতে পারবেন ! তবে এ কথা ও সত্য যে বর্তমানে প্রায় 60% ইনকাম এপস পেমেন্ট করতে চাইনা ! তারা ইউজারদের বিভিন্ন ধরনের রিজন দেখিয়ে তাদের পেমেন্ট বাতিল করে দেয়।

By BDTrick

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *